• Home
  • খবর
  • কোচবিহার
  • দায়িত্বজ্ঞানহীন ভাবে পরকীয়ার স্বীকৃতি চান এক পুত্র সন্তানের পিতা
কোচবিহার খবর

দায়িত্বজ্ঞানহীন ভাবে পরকীয়ার স্বীকৃতি চান এক পুত্র সন্তানের পিতা

নিজস্ব সংবাদদাতা, কোচবিহার, ২৭শে সেপ্টেম্বর; স্ত্রী-সন্তান বর্তমান থাকলেও অন্য আরেকজনকে বিয়ে করতে উদ্যোগী হয়েছেন স্বামী। আর তাই বৃহস্পতিবার পাত্রীর বাড়ির সামনে শিশু পুত্রকে নিয়ে অবস্থানে বসলেন স্ত্রী এবং পুত্রবধূকে সমর্থন জানিয়ে এই অবস্থানে শামিল হলেন শাশুড়িও। ঘটনাটি ঘটেছে কোচবিহার শহরের নিউ টাউন এলাকায়।
বিয়ে হয়েছে ২০১১সালে, আছে প্রায় ৩ বছরের এক পুত্রসন্তান।  কিন্তু তাতে কি এসে যায় স্বামীর। আর তাই তিনি সম্পর্কে জড়ালেন অন্য এক যুবতীর সাথে। বিবাহিত অবস্থাতেও প্রেম  করে যাচ্ছিলেন চুটিয়ে। আর এর ফলশ্রুতিতেই নিজের স্ত্রী ও সন্তানের দায়িত্ব এড়ানোর জন্য বেশ কিছুদিন ধরেই ফন্দি আটছিলেন  স্বামী দীপক সাহা। তবে সবটাই তার নিজের স্ত্রীর অজান্তে। স্ত্রীকে অন্ধকারে রেখে  তার সই জাল করে আইনগতভাবে বিবাহ বিচ্ছেদের পত্র হাতে ধরিয়ে দিলেন নিজের  স্ত্রীর। আর ছিন্ন করলেন বৈবাহিক সম্পর্ক।  কিন্তু এই বিবাহ বিচ্ছেদের পত্র হাতে পেয়েই অবাক হয়ে গেলেন স্ত্রী সুলগ্না দেবী। এটা কি করে সম্ভব। তিনি ঘুণাক্ষরেও জানতে পারলেন না এই বিবাহ বিচ্ছেদের কথা, সই করলেন না আইনের কোন কাগজে, তারপরেও কিভাবে হয়ে গেল বিবাহ বিচ্ছেদ। একদিকে সংসার হারানোর যন্ত্রণা আরেকদিকে নিজের পুত্র সন্তানের ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে কার্যত পাগলিনী হয়ে উঠলেন স্ত্রী। এই পরিস্থিতিতে নিজের পূত্রবধুর পাশে দাঁড়ালেন শাশুড়ি গায়েত্রী সাহা। রীতিমতো প্রতিবাদে সোচ্চার হন তিনিও। কিন্তু কে শোনে কার কথা, এই বিবাহ বিচ্ছেদের পত্র স্ত্রীর হাতে ধরিয়ে প্রেমিকাকে বিয়ে করার তোড়জোড় শুরু করে দিলেন দীপক।

কোচবিহার শহরের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা কোচবিহার শহরের এক প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী পরিবারের এই ছেলের দেখাশোনা করেই  বিয়ে হয় দিনহাটা মহকুমার বামনহাট এলাকার বাসিন্দা বর্ষীয়ান সিপিআই(এম) নেতা তারা সাধন সিংহ এর মেয়ে সুলগ্নার সাথে। কিন্তু বৈবাহিক জীবন এর পাশাপাশি এই কোচবিহার শহরেরই নিউ টাউন এলাকার বাসিন্দা সঞ্চিতা বসাক এর সাথে সম্পর্কে লিপ্ত হয়ে পড়েন দীপক। জানা গেছে বিত্তশালী পরিবারের এই ছেলে তার এই প্রেমিকার পেছনে প্রতিনিয়ত প্রচুর অর্থ ব্যয় করতে শুরু করেন। বিষয়টি জানাজানি হতেই পারিবারিক কলহ শুরু হয়। তাকে ফিরিয়ে আনার অনেক চেষ্টা করেন তার মা গায়ত্রী দেবী। কিন্তু কিছুতেই ফেরানো যায়নি তাকে। অবশেষে বৃহস্পতিবার এই প্রেমিকার বাড়িতেই পাকাপাকি ভাবে বিয়ের বন্দোবস্ত করে ফেলেন দীপক সাহা এবং এই খবর তার বাড়িতে পৌঁছাতেই পুত্রবধূ এবং দীপকের একমাত্র  শিশু সন্তানকে নিয়ে এই মেয়ের বাড়ির সামনে ধরনায় বসে পড়তে দেখা যায় গায়ত্রী দেবীকে এদিন এই অবস্থানে বসেই নিজের ছেলের বিরুদ্ধে তার পুত্রবধুর সাথে প্রতারণা করার অভিযোগ আনেন স্বয়ং দীপকের মা। তিনি বলেন তার ছেলে বিবাহিত জেনেও  এই মেয়ে এবং তার পরিবার তার ছেলের সাথে বৈবাহিক সম্পর্ক স্থাপন করতে চাইছে কেন? একটি সংসার ভেঙ্গে দিতে কেন  উদ্যোগী হয়েছেন তারা? যতক্ষণ এই প্রশ্নের উত্তর তারা না দেবেন এবং এই বিবাহ বন্ধ না করবেন।  ততক্ষণ এই অবস্থান চালিয়ে যাবেন তিনি এবং তার পুত্রবধূ বলে তিনি জানান।

নিজের স্বামীর বিরুদ্ধে একই অভিযোগ এনে এই অবস্থানে বসে এই অন্যায়ের প্রতিকার চান স্ত্রী সুলগ্না। এই প্রসঙ্গে স্থানীয় ক্লাবের সম্পাদক মহানন্দা সাহা বলেন, সম্প্রতি এ বিষয়টি নিয়ে একটি লিখিত অভিযোগ ক্লাবে জমা পড়ার পর তারা বিষয়টি সম্পর্কে ওয়াকিবহাল হয়েছেন। তিনি বলেন, দলমত নির্বিশেষে সকলেই চান এই সংসার যাতে ভেঙে না যায়।
তবে তার বিরুদ্ধে ওঠা  সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করেছেন দীপক সাহা।

Related posts

বিষ্ণুপুর পূজা সংঘে উদ্বোধনে অভিষেক ও সায়ন্তিকা

Topnewstoday

জলপাইগুড়ি ট্রাফিক পুলিশের পূজা গাইড ম্যাপ প্রকাশ

Topnewstoday

শিক্ষা ব্যবস্থায় কন্ট্রোল নেই সরকারের তাই অরাজকতা- দিলীপ ঘোষ

Topnewstoday

Leave a Comment