রাজ্য সংস্কৃতি

কোজাগরী লক্ষ্মীর স্মার্ট বন্দনা

Top News Today @ ২২ অক্টোবর, জলপাইগুড়িঃ 

কোজাগরী লক্ষ্মীপুজো করতে চান? বাড়িতে জায়গা নেই অথবা কাজের চাপ?  এইসব সমস্যার সার্থক সমাধান খুজেছে জলপাইগুড়ির পাণ্ডাপাড়া শেষবাতি সার্বজনীন দুর্গাপুজা কমিটি।

যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে পালটে যাচ্ছে রীতিনীতি। তার ছোঁয়া লেগেছে লক্ষ্মীপুজোতেেও। বারোয়ারি দুর্গাপুজার মণ্ডপে এবার পুজিত হবেন ধনদেবী। এমনকি ডেবিট বা ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমেও পুরোহিতের দক্ষিণা প্রদানের ব্যবস্থা আছে।  জলপাইগুড়ি শহরের পাণ্ডাপাড়ায় এই বারোয়ারি পুজোর উদ্যোগ নিয়েছে কমিটির সদস্যরা।

বড় শহরে কাজের চাপে বা বাড়িতে জায়গা না থাকায় অনেকেই বাড়িতে লক্ষীপুজোর ব্যবস্থা করে উঠতে পারেন না। কিন্তু ধনদেবীর আরধনা করতে না পারলে শান্তিও পান না আম বাঙালী। সেই কথা মাথায় রেখে কলকাতার মত জায়গায় বারোয়ারি লক্ষীপুজোর চল হয়েছে বেশ কয়েক বছর। তবে জলপাইগুড়ি জেলার ধুপগুড়ি বা ময়নাগুড়ির মত এলাকায় ব্যবসায়ীদের নিজস্ব উদ্যোগে দু-একটি লক্ষীপুজো হলেও, বারোয়ারি লক্ষীপুজোর চল ছিল না এতদিন।

হঠাৎ এমন উদ্যোগ কেন ? ক্লাবের যুগ্ম সম্পাদক রাণা দে’র কথায়, অনেকেই বাড়িতে পুজোর ব্যবস্থা করে উঠতে পারেন না, তারা সেই সুযোগটাই করে দিতে চেয়েছেন।
মঙ্গলবার রাতে হবে এই মণ্ডপে দেবী লক্ষীর আরাধনা। চারফুটের লক্ষী প্রতিমা বানানো হয়েছে পুজোর জন্য। নাড়ু,মোয়া, মুড়কি,ফল, ফুল, আনুষঙ্গিক সবরকম আয়োজন থাকবে পুজোর জন্য। যারা চাইবেন শুধু এসে পুজো দেবেন।
কমিটির আরেক যুগ্ম সম্পাদক সুব্রত নিয়োগী জানিয়েছেন, কেউ যদি পুজোয় নিবেদনের জন্য কিছু আনতে চান তা অবশ্যই আনতে পারেন, তবে কমিটি সবরকম বন্দোবস্ত রাখছে। এই পুজোর বাজেট পঞ্চাশ হাজার টাকা। তবে তা আলাদা করা তোলা হয়নি। দুর্গাপুজার চাঁদা থেকেই সেই টাকার ব্যবস্থা করা হয়েছে।
আর থাকছেন শহরের “ডিজিটাল” পুরোহিত জয়ন্ত চক্রবর্তী। তার কাছে থাকছে ডিজিটাল সোয়াইপ মেশিন। পুজো দিতে এসে যদি পাঞ্জাবির পকেটে টাকা নাও থাকে তাতেও অসুবিধে নেই।পুরোহিত জয়ন্তবাবু জানিয়েছেন, ডেবিট বা ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমেও তার দক্ষিণা, প্রনামী দেওয়ার ব্যবস্থা থাকছে।
কমিটির লক্ষীপুজার উদ্যোগ শুনে অনেক শহরবাসীয় উৎসাহিত হয়েছেন। শবরী ঠাকুর নামে এক গৃহবধূর কথায়, এরকম ব্যবস্থা হলে তো ভালোই, বিনা ঝক্কিতেই পুজোও সারা হয় আবার, আনন্দও করা যায়।
বুধবার দিনও মণ্ডপে প্রতিমা রেখে দেওয়া হবে দর্শনার্থীদের জন্য। উদ্যোক্তাদের আশা তাদের দুর্গাপুজার জন্য তৈরি সুন্দর  বাঁশের মণ্ডপ যেমন দর্শনার্থীদের মন জয় করেছিল, তাদের লক্ষীপুজোর উদ্যোগও তাই করবে।

 

 

Related posts

এবার পুজোয় কলকাতা মাতাবে ডোকরা শিল্পের অলংকার

Topnewstoday

চন্দ্রকোনায় কোলে পরিবারের পুজো আজও ঐতিহ্যের সাক্ষী বহন করে

Topnewstoday

বনদপ্তরের ক্যারাভ্যান এখন পর্যটনের নতুন দিশা

Topnewstoday

Leave a Comment