• Home
  • খবর
  • জেলায় জেলায় কেন্দ্রীয় সরকারের ইপিএফ হাট
খবর পূর্ব বর্ধমান

জেলায় জেলায় কেন্দ্রীয় সরকারের ইপিএফ হাট

নিজস্ব সংবাদদাতা, পূর্ব বর্ধমান, ১১ ডিসেম্বর;

কেন্দ্রীয় সরকারের নির্দেশে বেসরকারী কর্মচারীদের ইপিএফের আওতায় আনার জন্য যে জোরদার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে সেই প্রক্রিয়ায় সাধারণ বেসরকারী কর্মচারীরা প্রায়শই দালালদের হাতে পড়ে অর্থ খোয়াচ্ছেন। আর তাই দালালদের হাত থেকে সাধারণ কর্মচারীদের বাঁচাতে এবার জেলায় জেলায় হাট চালুর উদ্যোগ নিল ইপিএফ কর্তৃপক্ষ।

শুক্রবার বর্ধমান জেলা রাইস মিল ওনার্স এ্যাসোসিয়েশনের উদ্যোগে বর্ধমান শহরের আলমগঞ্জে এই অস্থায়ী হাটের সূচনা করলেন ইপিএফের রিজিওনাল কমিশনার আর এফ লোহানী। হাজির ছিলেন ইপিএফের রিজিওনাল কমিশনার -২ অজয় কুমার সিং, এ্যাসিস্ট্যাণ্ট কমিশনার অশোক কুমার সিং সহ রাইস মিল এ্যাসোসিয়েশনের রাজ্য সভাপতি আব্দুল মালেক, জেলা সম্পাদক সুব্রত মণ্ডল, জেলা সহ সভাপতি রাজকুমার সাহানা প্রমুখরাও।

এদিন আর এফ লোহানী জানিয়েছেন, বর্তমানে ইপিএফের যাবতীয় কাজকর্ম হচ্ছে অনলাইনে। কিন্তু অনেক কর্মচারীই তাতে অভ‌্যস্ত নন। ফলে সমস্যা মেটাতে তাঁরা প্রায়শই দালালদের খপ্পরে পড়ে অর্থ ও সময় নষ্ট করছেন। তিনি জানিয়েছেন, জেলা জেলায় এব্যাপারে অফিস করতে গেলে তার অনুমোদন, অর্থ প্রভৃতিতে অনেক সময় লেগে যাবে। তাই জেলায় জেলায় তাঁরা বিভিন্ন সংগঠনের উদ্যোগে এই হাট চালুর উদ্যোগ নিয়েছেন। এর ফলে সংশ্লিষ্ট এলাকার মানুষদের অসুবিধা অনেক দূর হবে।

প্রসঙ্গত, পূর্ব বর্ধমান জেলায় এখনও ইপিএফের কোনো অফিস না থাকায় এই সংক্রান্ত সমস্যা মেটাতে সাধারণ মানুষকে দুর্গাপুরে (রিজিওনাল অফিসে) ছুটতে হয়। লোহানী জানিয়েছেন, বৃহস্পতিবারই আসানসোলে এই ধরণের মাই ই পিএফ হাটের উদ্বোধন করা হয়েছে। সেখানে ইপিএফের অফিসাররা থাকছেন। প্রাথমিকভাবে অস্থায়ীরূপে শুরু হলেও পরবর্তী পরিস্থিতি বিবেচনা করে এব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

তিনি জানিয়েছেন, ইণ্টারনেটের মাধ্যমে প্রতিটি কর্মচারী তাঁর দেওয়া টাকা সঠিকভাবে জমা পড়ছে কিনা তা যেমন জানতে পারছেন তেমনি অবসরের পর তিনি যখন টাকা তুলতে চান তখনও যাতে নিজেই সেই কাজ করতে পারেন, দালালদের খপ্পরে তাঁকে পড়তে না হয় সে ব্যাপারেও এই হাট থেকে পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। শুক্রবার বর্ধমানের আলমগঞ্জে মাই ই পিএফ হাটের উদ্বোধন করা হয়।

এদিন পূর্ব বর্ধমান জেলা রাইস মিল ওনার্স এ্যাসোসিয়েশনের জেলাসম্পাদক সুব্রত মণ্ডল জানিয়েছেন, পূর্ব বর্ধমান জেলায় প্রায় ৪৫০টি রাইস মিল রয়েছে, যেখানে প্রায় ২ লক্ষেরও বেশি কর্মচারী যুক্ত। সিংহভাগই ইপিএফের সঙ্গে যুক্ত থাকলেও দেখা যাচ্ছে অবসরের পর তাঁদের নানাবিধ সমস্যা হচ্ছে। আর তাই তাঁদের সময় ও অর্থ খরচ করে দুর্গাপুর রিজিওনাল অফিসে ছুটতে হচ্ছিল। অনেকসময়ই তাঁরা দালালদের খপ্পরে পড়ে অর্থ খরচ করলেও বাস্তবে সুরাহা পাচ্ছিলেন না। তাই ইপিএফ কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করেই বর্ধমানে এই অস্থায়ী হাট চালু করা হয়েছে। আপাতত সপ্তাহে ৪দিন খোলা থাকবে এই হাট। ইপিএফ সংক্রান্ত নানাবিধ সমস্যা মেটানোর চেষ্টা চলবে।

অন্যদিকে, এদিন ইপিএফের কমিশনার আরএফ লোহানী জানিয়েছেন, বর্ধমানে এই হাট চালুর পাশাপাশি বাঁকুড়া, পুরুলিয়াতেও এই হাট চালু করতে চলেছেন তাঁরা। এদিন পূর্ব বর্ধমান জেলা রাইস মিল ওনার্স এ্যাসোসিয়েশনের সহসভাপতি রাজকুমার সাহানা জানিয়েছেন, এই ই পিএফ হাট চালুর পাশাপাশি রাইস মিলারদেরও আন্তরিকভাবে তাঁদের কর্মচারীদের সমস্যা মেটানোর জন্য এগিয়ে আসতে হবে। অনেক সময়ই এব্যাপারে অনীহা দেখানোয় ভুগতে থাকেন কর্মচারীরা।

Related posts

নাবালিকা ধর্ষনের অভিযোগে গ্রেপ্তার ফল ব্যবসায়ী

Topnewstoday

মহানন্দা নদী থেকে যুবকের মৃতদেহ উদ্ধার

Topnewstoday

এটিএম কার্ডের জালিয়াতি চক্রের হদিস আটক ৩

Topnewstoday

Leave a Comment