• Home
  • খবর
  • তৃণমূল নেত্রী মুমতাজ বেগমের বাড়িতে দুষ্কৃতীদের প্রাণনাশের হুমকি
খবর মালদা

তৃণমূল নেত্রী মুমতাজ বেগমের বাড়িতে দুষ্কৃতীদের প্রাণনাশের হুমকি

নিজস্ব সংবাদদাতা, মালদা, ১২ জানুয়ারি;

তৃণমূল নেত্রীর বাড়িতে খুন করার উড়ো চিঠি। খাবারের প্যাকেট দিয়ে “মৃত্যুর প্যাকেট” বলে প্রকাশ্যে তৃণমূল নেত্রীর বাড়িতে হাজির হয়ে হুমকি দেওয়ার অভিযোগ এলাকায় সশস্ত্র দুষ্কৃতীদের বিরুদ্ধে। ওই প্যাকেট দিয়ে শেষ খাওয়ার খেতে বলারও হুমকি দেওয়া হয়েছে দুষ্কৃতীদের তরফ থেকে। আর এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে শুক্রবার রাত থেকে উত্তাল হয়ে উঠেছে হরিশ্চন্দ্রপুর থানা এলাকা। রাতেই ওই তৃণমূল নেত্রী দম্পতির বাড়িতে দুষ্কৃতীদের প্রকাশ্যে হুমকির ঘটনার জেরে দলের স্থানীয় কর্মী-সমর্থকরা হরিশ্চন্দ্রপুর থানায়  গিয়ে বিক্ষোভ দেখান। পুলিশের কাছে লিখিত অভিযোগে দুষ্কৃতীদের অবিলম্বে গ্রেপ্তার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিও জানান স্থানীয় তৃনমূলের কর্মী-সমর্থকেরা। চাচলের এসডিপিও সজল কান্তি বিশ্বাস জানিয়েছেন,  পুরো বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। সংশ্লিষ্ট থানার পুলিশ দুষ্কৃতীদের খোঁজ শুরু করেছে।

হরিশ্চন্দ্রপুর ১ ব্লকের মালদা জেলা পরিষদের নির্বাচিত সদস্য মুমতাজ বেগম এবং তার স্বামী আমিনুল হককে খুন করে ফেলা হবে বলে দুষ্কৃতীরা উড়ো চিঠি দিয়ে এবং একটি বাক্সে ফল-মিষ্টি পাঠিয়ে হুমকি দিয়েছে। আমিনুল হক হরিশ্চন্দ্রপুর ১ ব্লকের প্রভাবশালী তৃণমূল নেতা। এবং তার স্ত্রী মমতাজ বেগম মালদা জেলা পরিষদের স্থানীয় জনপ্রতিনিধি। এলাকায় তোলাবাজি, দলের বিরুদ্ধে বেআইনি কাজকর্ম রুখতেই প্রচারে সোচ্চার হয়েছিলেন আমিনুল সাহেব এবং তার স্ত্রী মমতাজ বেগম।  আর তারই জেরে ওই দম্পতিকে প্রকাশ্যেই খুন করে দেওয়ার হুমকি দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ । এই ঘটনার জের এই এলাকার তৃণমূল নেতাকর্মীদের মধ্যে তুমুল ক্ষোভ সঞ্চার হয়েছে । দুই দিনের মধ্যে প্রকৃত অপরাধীরা গ্রেফতার না হলে আন্দোলনের কথা পুলিশকে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট এলাকার তৃণমূল কর্মীরা।

তৃণমূল নেতা আমিনুল হক বলেন, আমার ছেলে চিকিৎসার জন্য পূণিয়াতে রয়েছে।  শুক্রবার রাতে বাড়িতে একাই ছিলেন আমার স্ত্রী মুমতাজ বেগম। আমি মালদা এসেছিলাম মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারি একটি সভায় যোগ দিতে । সেই সময় পাঁচ জন সশস্ত্র দুষ্কৃতীর দল আমার বাড়িতে একটি বাক্স নিয়ে ঢুকে।  স্ত্রীকে বন্দুক দেখিয়ে প্রাণনাশের খোলা চিঠি দিয়ে হুমকি দেওয়া হয়।  তারপর দুষ্কৃতীরা আমার স্ত্রীকে বাক্স থেকে ফল বার করে শেষ খাবার খেতে বলে‌। এই বিষয়টি বাড়িতে থাকা এক পরিচারক গোপনে তার মোবাইলে ছবি করে নেয়। ফলে ওই দুষ্কৃতীদের চিহ্নিত করা গিয়েছে। আমিনুল সাহেব আরও বলেন, বাড়ি থেকে স্ত্রী আমাকে ফোন করে বিষয়টি জানায়। তড়িঘড়ি হরিশ্চন্দ্রপুর ফিরে যায়। আর দলীয় কর্মী নেতাদের বিষয়টি জানাতে এলাকায় বিক্ষোভ শুরু হয়। এব্যাপারে পুলিশের কাছে লিখিত অভিযোগ জানিয়েছি ।

মালদা জেলা পরিষদের সদস্য মুমতাজ বেগম বলেন,  এলাকায় কোনরকম তোলাবাজি করতে দেওয়া হবে না । দলের নাম ভাঙ্গিয়ে যদি কেউ অপকর্ম করে সেটাও বরদাশ্ত করা হবে না । মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জীর উন্নয়নকে সামনে রেখেই মানুষের কাছে যেতে হবে । যেভাবে দলনেত্রী আমাদের উন্নয়নমূলক কাজে মানুষের পাশে থাকার নির্দেশ দিয়েছেন। সেই ভাবেই সততার সাথে কাজ করে আসছি । কিন্তু এলাকার কিছু দুষ্কৃতীর পক্ষে এসব মেনে নেওয়া সম্ভব হচ্ছে না। তাই এই ভাবেই প্রকাশ্যে অস্ত্র নিয়ে আমাদেরকে খুনের হুমকি দিয়েছে।  অশ্লীল ভাষায় মৃত্যুর চিঠি লেখে বাড়িতে হুমকি দিয়ে গেছে ওরা। এই ঘটনার পর  থেকেই আতঙ্কে রয়েছি।  রাজ্য নেতৃত্বকেও বিষয়টি জানানো হয়েছে।

তৃণমূল কংগ্রেসের মালদা জেলা সভাপতি মোয়াজ্জেম হোসেন জানিয়েছেন ,  দুষ্কৃতীরা প্রকাশ্যে  দলের নেতা-নেত্রীদের খুনের হুমকি দিবে।  আর সেটা আমাদের মেনে নিতে হবে তা কখনোই বরদাস্ত করব না। পুরো বিষয়টি নিয়ে পুলিশের সঙ্গে কথা বলেছি । অবিলম্বে দুষ্কৃতীদের গ্রেপ্তার করতে হবে । একথাও হরিশ্চন্দ্রপুর থানা পুলিশকে জানানো হয়েছে।

হরিশ্চন্দ্রপুর থানার আইসি সঞ্জীব বিশ্বাস জানিয়েছেন,  জেলা পরিষদ সদস্য মুমতাজ বেগম এবং তার স্বামী আমিনুল হকের অভিযোগ পাওয়ার পরই পুলিশ এলাকায় তদন্ত শুরু করেছে। দুষ্কৃতীদের খোঁজ চালানো হচ্ছে।

Related posts

শিলিগুড়ি আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের উদ্বোধনে পরিচালক অরিন্দম শীল

Topnewstoday

সবং-এ গোষ্ঠী দ্বন্দ্বে ভাঙল তৃণমূল কার্যালয়

Topnewstoday

জমি বিবাদের জেরে মা ও মেয়ে ছুরিকাহত অভিযুক্ত পলাতক

Topnewstoday

Leave a Comment