• Home
  • খবর
  • বহুজাতিক সংস্থার প্রতারণার শিকার সাধারণ মানুষ থেকে ব্যবসায়ী, ওয়েষ্ট বেঙ্গল ডিষ্ট্রিবিউটর এ্যাসোসিয়েশন
খবর পূর্ব বর্ধমান

বহুজাতিক সংস্থার প্রতারণার শিকার সাধারণ মানুষ থেকে ব্যবসায়ী, ওয়েষ্ট বেঙ্গল ডিষ্ট্রিবিউটর এ্যাসোসিয়েশন

নিজস্ব সংবাদদাতা, পূর্ব বর্ধমান, ১২ জানুয়ারি;

কি কেন্দ্র সরকার কি রাজ্য সরকার কেউই তাঁদের দিকে ফিরেও তাকাচ্ছেন না। অথচ রাজস্ব দেবার ক্ষেত্রে তাঁরা যে কোনো সংস্থাদের থেকেও অনেক ওপরের তালিকায় রয়েছেন। কিন্তু রাজ্য সরকার বিভিন্ন সেক্টরের জন্য নানাবিধ সুযোগ সুবিধা দিলেও গোটা দেশের পরিবেশকদের জন্য কোনো সরকারই কিছু করছেন না বলে অভিযোগ তুলল ওয়েষ্ট বেঙ্গল ডিষ্ট্রিবিউটর এ্যাসোসিয়েশন। আর সরকারী এই বঞ্চনাকে সামনে রেখেই রবিবার বর্ধমানের টাউন হলে অনুষ্ঠিত হচ্ছে সংগঠনের ২৬তম রাজ্য সম্মেলন।

শনিবার সাংবাদিক বৈঠকে সংগঠনের রাজ্য ও জেলা নেতৃত্বরা অভিযোগ করেছেন, রাজ্যে শিল্প স্থাপনের জন্য সরকার উদ্যোগী হয়েছেন। বিশেষ করে ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্পের জন্য রাজ্য সরকার গুরুত্ব দিয়েছেন। এরই পাশাপাশি সমাজজীবনে ক্রমশই থাবা বসাচ্ছে বহুজাতিক সংস্থাগুলি। তাঁরা সাধারণ মানুষকে সুকৌশলে ঠকাচ্ছেন। আর জেনেবুঝেও এব্যাপারে কোনো সরকারী উদ্যোগই নেই।

পরিবেশকরা এদিন অভিযোগ করেছেন, বহুজাতিক সংস্থাগুলির শপিং মলগুলিতে খদ্দের টানতে একটি কিনলে একটি ফ্রি দেবার কথা ঘোষণা করা হচ্ছে। অথচ সাধারণ দোকানদাররা সেই সুযোগ দিতে পারছেন না। কারণ বহুজাতিক কোম্পানীগুলি কেবলমাত্র শপিং মলের জন্যই কিছু কিছু মূল্য আলাদা করছেন। ফলে একই নাম, একই ব্রাণ্ড দুজায়গায় দুরকম হওয়ায় সাধারণ মানুষকে বিভ্রান্তির মধ্যে ঠেলে দেওয়া হচ্ছে। একইসঙ্গে তাঁরা ঠকছেনও। প্রতিদিনই নিজেদের জ্ঞাতসারে বা অজ্ঞাতসারে বহুজাতিক বিভিন্ন কোম্পানীর হাতে সাধারণ মানুষ থেকে ব্যবসায়ীরা প্রতারিত হচ্ছেন বলে অভিযোগ তুললেন ওয়েষ্ট বেঙ্গল ডিষ্ট্রিবিউটর এ্যাসোসিয়েশন।

সংগঠনের সহ সম্পাদক অভিজিৎ চ্যাটার্জ্জী, জেলা সভাপতি প্রিয়ত ভট্টাচার্য, সংগঠনের উপদেষ্টা শান্তিনাথ মুখার্জ্জী প্রমুখরা অভিযোগ করেছেন, গোটা ভারতবর্ষ জুড়েই সমস্ত রাজ্য ও জেলায় জেলায় এমনকি একেবারে প্রত্যন্ত গ্রামেও তাঁরা নিত্যপ্রয়োজনীয় মানুষের জিনিসপত্র পৌঁছে দিচ্ছেন। কিন্তু তাঁরাই বর্তমানে সবথেকে সংকটজনক অবস্থায় দিন কাটাচ্ছেন।

শান্তিনাথবাবুরা অভিযোগ করেছেন, সত্যিই যদি সমস্ত ক্রেতাদের কাছে এই সুবিধা পৌঁছে দেওয়ার বিষয় থাকত, তাহলে তাঁদের মাধ্যমেও সেই সুবিধা পৌঁছে দিত কোম্পানীগুলি। কিন্তু এই সুবিধা দেওয়া হচ্ছে কেবলমাত্র বড় বড় শপিং মলেই। এরই পাশাপাশি এদিন পরিবেশক সংগঠনের কর্তারা অভিযোগ করেছেন, তাঁদের মাধ্যমেই বিভিন্ন শিল্পের প্রসার ঘটে। অথচ কোনোরকম সরকারী সুবিধা থেকে তাঁরা বঞ্চিত হয়ে রয়েছেন।

গোটা রাজ্যে বিভিন্ন কোম্পানীর কাছ থেকে বিভিন্ন নষ্ট দ্রব্যের জন্য ২৫ হাজার কোটি টাকা এবং বিভিন্নভাবে ১০ হাজার কোটি টাকা পাওনা রয়েছে তাঁদের। ফলে কোম্পানীগুলি লাভবান হলেও চুড়ান্ত ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছেন পরিবেশকরা। এরই পাশাপাশি ব্যাঙ্কের অসহযোগিতায় খুচরো পয়সার পাহাড় জমে উঠেছে তাঁদের ঘরে। অথচ তাঁরা কিছু করতে পারছেন না।

পরিবেশকরা জানিয়েছেন, পূর্ব বর্ধমান জেলায় প্রায় ৮৫০জন পরিবেশক রয়েছেন। গোটা রাজ্যে এর সংখ্যা প্রায় ১ লক্ষ। প্রতিটি পরিবেশকের সঙ্গে যুক্ত ৭জন করে কর্মচারী ও তাঁদের পরিবার। ফলে এই সংকটের জের এসে পড়েছে গোটা রাজ্যের কয়েকলক্ষ মানুষের ওপর। এরসঙ্গে রয়েছে আচমকাই কোম্পানী হস্তান্তর। ফলে সেখানেও এই পরিবেশকরা চরম সমস্যায় পড়ছেন।

এদিন পরিবেশক সংগঠনের কর্তারা জানিয়েছেন, বর্তমান নিয়মানুযায়ী সার্ভিস ট্যাক্স দিতে বলা হচ্ছে প্রতি মাসে। মাসে ৩বার করে এই রিটার্ন জমা দিতে বলা হচ্ছে। কিন্তু নানাবিধ জটিলতার কারণে তাঁরা এই রিটার্ন জমা দিতে পারছেন না। পাশাপাশি খরচও বাড়ছে। এব্যাপারে সরকারী উদ্যোগ এবং এই পদ্ধতির সরলীকরণ করা উচিত। সংগঠনের কর্তারা জানিয়েছেন, বহু বেকার বিভিন্ন কোম্পানীর ডিষ্ট্রিবিউটর হিসাবে কাজ করতে নামছেন। কিন্তু এজন্য ব্যাঙ্কগুলি কোনোরকম সহায়তা দিচ্ছে না। এমনকি সরকারী নির্দেশ থাকা সত্ত্বেও প্রতিটি পরিবেশকের কাছে হাজার হাজার টাকার খুচরো জমা থাকলেও তা নিচ্ছে না ব্যাঙ্কগুলি।

এদিন সাংবাদিক বৈঠকে কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, রবিবার রাজ্য সম্মেলন থেকেই তাঁরা পরবর্তী আন্দোলন কর্মসূচীর সিদ্ধান্ত নেবেন। গোটা রাজ্য জুড়েই এই বঞ্চনা, প্রতারণা এবং সরকারী উদাসীনতার অভিযোগে তাঁরা রাজ্য জুড়েই আন্দোলনে নামার প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

Related posts

বালি খাদান বন্ধ করতে প্রশাসনিক বৈঠক থেকেই কড়া বার্তা দিলেন মুখ্যমন্ত্রী

Topnewstoday

খিদিরপুর জিম ফাদার সংগঠনের উদ্যোগে অল বেঙ্গল বডি বিল্ডিং চ্যাম্পিয়নশিপ

Topnewstoday

তৃণমূলের ১০০ কর্মী বিজেপিতে যোগদান

Topnewstoday

Leave a Comment