• Home
  • খবর
  • পরপর তিন কন্যা সন্তান হওয়ায় স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির কটূক্তি ও অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে বধূর আত্মহত্যা
খবর মালদা

পরপর তিন কন্যা সন্তান হওয়ায় স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির কটূক্তি ও অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে বধূর আত্মহত্যা

নিজস্ব সংবাদদাতা, মালদা, ১১ ফেব্রুয়ারি;

পারিবারিক বিবাদ এর ওপর তিন কন্যা সন্তান হওয়ায় স্ত্রীকে কটূক্তি করত স্বামী। আর তাতেই অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে নিজের গায়ে আগুন দিয়ে আত্মঘাতী হলো গৃহবধূ। ঘটনাটি ঘটেছে মালদার হবিবপুর থানার তিলাসন গ্রামে। ঘটনার অভিযোগ অস্বীকার স্বামীর। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে হবিবপুর থানার পুলিশ।

জানা গিয়েছে,মৃতের নাম মল্লিকা ভুঁইমালি (২৭)। মৃতার আত্মীয় শ্যাম সাহা জানান, মেয়ের বাড়ি কালিয়াচক থানার বাহাদুরপুর এলাকায়। ১২ বছর আগে দেখাশোনা করে হবিবপুর থানার তিলাসন এলাকার বাসিন্দা টগর ভুঁইমালীর সঙ্গে বিয়ে হয়। টগর পেশায় গাড়িচালক। তার বাপের বাড়ির অভিযোগ তাদের তিনটি কন্যা সন্তান রয়েছে। এর ওপর মেয়েকে বাপের বাড়ি থেকে টাকা নিয়ে আসার জন্য প্রতিনিয়ত চাপ দিত টগর। আর তা নিয়ে আসতে অস্বীকার করলেই তার ওপর চলতো অত্যাচার। এই নিয়ে স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির লোকেরা ওই গৃহবধূকে দিনের পর দিন ধরে কটুক্তি করত।

গত বুধবার ওই গৃহবধূ অপমান সহ্য করতে না পেরে ঘরের মধ্যে থাকা কেরোসিন তেল ঢেলে নিজের গায়ে আগুন লাগিয়ে দেয়। গৃহবধূর চিৎকারে গ্রামবাসীরাই তাকে উদ্ধার করে প্রথমে স্থানীয় স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ও পরে তার অবস্থা খারাপ হওয়ায় মালদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। সোমবার সকালে তার মৃত্যু হয়। এই ঘটনায় অভিযুক্ত স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির লোকেদের বিরুদ্ধে মেয়ের বাপের বাড়ির পক্ষ থেকে আত্মহত্যায় প্ররোচনা দেওয়ার অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

যদিও সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করেছে অভিযুক্ত স্বামী টগর। সে জানায়, অভিযোগ ভিত্তিহীন। স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে মাঝে মাঝে বচসা হত কিন্তু তাকে কখনো মারধর করা হয়নি। মাঝে সে বাড়িতে রান্না বন্ধ করে দিয়েছিল। কিন্তু সে কেন গায়ে আগুন ধরে দিল তা বুঝতে পারছি না।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে,মৃতদেহ ময়নাতদন্তের জন্য মালদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়ে ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে।

Related posts

মালদায় দুই হাজার টাকার জন্য পাওনাদার আক্রান্ত

Topnewstoday

রাতের অন্ধকারে চলল গুলি

Topnewstoday

ব্যাঙ্কের ভল্ট থেকে ৮৪ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা উধাও অভিযুক্ত ব্যাঙ্কের কর্মী

Topnewstoday

Leave a Comment