• Home
  • খবর
  • মানিকচকের অগ্নিকাণ্ডের মৃত ৬ জনকে খুন করার ঘটনায় মূল অভিযুক্ত মাখন মন্ডলকে গ্রেফতার করল পুলিশ
খবর মালদা

মানিকচকের অগ্নিকাণ্ডের মৃত ৬ জনকে খুন করার ঘটনায় মূল অভিযুক্ত মাখন মন্ডলকে গ্রেফতার করল পুলিশ

নিজস্ব সংবাদদাতা, মালদা, ১১ ফেব্রুয়ারি;

মানিকচকের অগ্নিকাণ্ডের মৃত ৬ জনকে খুন করার ঘটনায় মূল অভিযুক্ত মাখন মন্ডলকে গ্রেফতার করল পুলিশ। দীর্ঘ কয়েক দিন ধরে পুলিশের নজরের বাইরে গা ঢাকা দিয়েছিল অভিযুক্ত মাখন। সোমবার দুপুরে মোথাবাড়ি থানার পুলিশ ও মানিকচক থানার পুলিশ গোপন সূত্রে খবর পায় অভিযুক্ত মাখন মন্ডল তার এক আত্মীয়র বাড়িতে গা ঢাকা দিয়ে আছে। খবর পাওয়া মাত্রই মোথাবাড়ি থানা ও মানিকচক থানার পুলিশ মোথাবাড়ি থানা এলাকার রামনাথটোলা এলাকায় অভিযুক্তের খোঁজে আত্মীয়র বাড়িতে হানা দেয় ।পুলিশকে দেখে অভিযুক্ত ছাদ থেকে নিচে লাফাতে গেলে নিচে একটি রডের ফাঁকে তার গলা় ঢুকে পড়ে । সেখানে সে আহত হয়ে পড়ে যায়। ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ মালদা জেলা মেডিকেল হাসপাতালে নিয়ে এসে ভর্তি করে দীর্ঘক্ষন চিকিৎসকদের চিকিৎসার পর তাকে ভর্তি করা হয় ।

পুলিশ জানিয়েছে, মানিকচক থানার মদনটোলা গ্রামের বাসিন্দা মৃত বাবা গেদুধর মন্ডলের এনভিএফের চাকরি পাওয়া নিয়ে চার ছেলের মধ্যে গোলমালের সূত্রপাত । আর তারই জেরে সেজো ভাইয়ের হাতে খুন হতে হয় অপর তিন ভাইয়ের পরিবারের ছয় জনকে। এখনও তিনজনের চিকিৎসা চলছে মালদা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে।

মেডিকেল কলেজের ডেপুটি সুপার ডাঃ জ্যোতিষ চন্দ্র দাস জানিয়েছেন, অগ্নিদগ্ধ অবস্থায় আহত ছোটু মন্ডল (৭), ববিতা মন্ডল (২৩) এবং বিশাল মন্ডল (১৩) এই তিনজন সঙ্কটজনক অবস্থায় রয়েছে । বার্ন ইউনিটে তাদের এখনও চিকিৎসা পরিষেবা দেওয়া হচ্ছে।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, গত ৫ ফেব্রুয়ারি মেডিকেল কলেজে মৃত্যু হয় রাখী মন্ডল (২৪) এবং গোপী মন্ডলের (২৮)। এর আগে এই অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় ৩ ফেব্রুয়ারি রাতে মানিকচক থানার মদনটোলা গ্রামের বাড়িতেই অগ্নিদগ্ধ হয়ে মৃত্যু হয়েছিল দুই কন্যা শিশু প্রিয়া মন্ডল (আড়াই বছর) এবং দেবশ্রী মন্ডলের (ছয় বছর)। ৪ ফেব্রুয়ারি মেডিকেল কলেজে মৃত্যু হয় ওই দুই শিশু কন্যার বাবা বিকাশ মন্ডলের (৩৫) এবং ভাই গোবিন্দ মন্ডলের (২৯)।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, মৃত গেদুধর মন্ডল এনভিএফে কর্মরত ছিলেন। চাকরিরত অবস্থায় তিনি মারা যান । গেদুধরবাবুর চার ছেলে বিকাশ, গোপি, মাখন এবং গোবিন্দ মন্ডল । ছোট ছেলে গোবিন্দ মন্ডল বাবার এনভিএফের চাকরিটি পান। আর এই নিয়ে পরিবারে বিবাদ শুরু হয় । সেজো ভাই মাখন মন্ডল বাবার চাকরির দাবি করে। কিন্তু পেশায় সিভিক ভলেন্টিয়ার থাকার কারণে মাখন মন্ডলকে তার পরিবারের অন্যান্য ভাইরা মৃত বাবার এই চাকরি পেতে সহযোগিতা করেন নি বলে অভিযোগ । আর এই ঘটনার বদলা নিতেই তিন ভাইয়ের পরিবারকে পেট্রোল ঢেলে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে খুন করে অভিযোগ ওঠে সেজো ভাই মাখন মন্ডলের বিরুদ্ধে।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, গত সপ্তাহের বুধবার এই খুনের ঘটনায় তদন্তে আসতে পারে ফরেনসিক বিশেষজ্ঞ দল । পাশাপাশি এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে মূল অভিযুক্ত মাখন মন্ডলের সন্ধান চালানো হচ্ছিল । সোমবার পুলিশের কাছে খবর আসে মোথাবাড়ি এলাকার এক আত্মীয়ের বাড়িতে অভিযুক্ত মাখন মন্ডল গা ঢাকা দিয়ে আছে। সেই ঘটনার কথা জানতে পারে পুলিশ । এরপরই মানিকচক এবং মোথাবাড়ি থানার পুলিশ যৌথভাবে অভিযান চালায় সেখানে। তাকে ধরতে গেলে অভিযুক্ত পালাবার চেষ্টা করে । তখনই লোহার রডে পড়ে গিয়ে জখম হয় অভিযুক্ত। আপাতত অভিযুক্তকে মালদা মেডিক্যাল কলেজে পুলিশি পাহারায় চিকিৎসার জন্য ভর্তি করানো হয়েছে। সুস্থ হলেই তাকে পুলিশ রিমান্ডে নেওয়ার জন্য আবেদন জানাবে মানিকচক থানা পুলিশ।

Related posts

বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে জটিল অস্ত্রোপচার ইমার্জেন্সী রিজিড ব্রংকোসকপি দ্বারা ৮ মাসের বাচ্চার শ্বাসনালীতে আটকে যাওয়া রং পেন্সিল উদ্ধার

Topnewstoday

গাড়ির ধাক্কায় চিতাবাঘের মৃত্যু

Topnewstoday

“পরেশ অধিকারীর চামড়া, তুলে নেবো আমরা” দলে পরিযায়ী আগুন্তুক নেতাদের বিরুদ্ধে হুশিয়ারি দলীয় কর্মীদের

Topnewstoday

Leave a Comment