মাথাভাঙ্গায় তৃণমূল কর্মী খুন, গোষ্ঠী কোন্দলের অভিযোগ

Zoom In Zoom Out Read Later Print

পুলিশ সুত্রে জানা গেছে, বিশ্বজিত তালুকদারের শরীরে একাধিক আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। তাঁর হাত ভাঙা রয়েছে। তাঁর চোখ দুটো কার্যত খুবলে নেওয়ার মতো মনে হচ্ছিল। পরিবারের অভিযোগের ভিত্তিতে, ওই খুনের ঘটনায় জড়িত সন্দেহে সদিকুল মিয়া নামে এক তৃণমূল কর্মীকে আটক করা হয়েছে। কী কারণে খুন ? তা জানতে তদন্ত শুরু করেছে মাথাভাঙ্গা থানার পুলিশ।



কিংশুক দত্ত, মাথাভাঙ্গা, ১৩ এপ্রিল;

ভোট শেষ হতে না হতেই কোচবিহারে খুন তৃণমূল কংগ্রেসের এক কর্মী। ঘটনাটি ঘটেছে মাথাভাঙ্গা ১ নম্বর ব্লকের হাজরাহাট ২ নম্বর ব্লকের নিউ গোসাইহাট এলাকার বেলতলা গ্রামে বাড়ি। ওই ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়। শনিবার সকালে স্থানীয়রা ওই ব্যক্তির দেহ রেল লাইনের পাশে পড়ে থাকতে দেখেন। ওই ঘটনার খবর জানা জানি হতে না হতেই সেখানে সাধারণ মানুষের প্রচুর ভিড় জমতে শুরু করে। পরে ওই ঘটনার খবর দেওয়া হয় পুলিশকে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে আসে মাথাভাঙ্গা থানার পুলিশ। ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠায়। যদিও ওই খুনের ঘটনার পিছনে শাসকদলের গোষ্ঠী কোন্দলের দিকে অভিযোগের আঙুল তুলেছে নিহতের পরিবার। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

পরিবার সুত্রে জানা যায়, মৃত ওই ব্যক্তির নাম বিশ্বজিৎ তালুকদার (৪৫)। তাঁর বাড়ি মাথাভাঙ্গা ১ নম্বর ব্লকের হাজরাহাট ২ নম্বর ব্লকের নিউ গোসাইহাট এলাকার বেলতলা গ্রামে। পরিবারের লোকের অভিযোগ, শুক্রবার রাত ৯টা নাগাদ সদিকুল মিয়া, মন্টু সরকার ও ভূষণ দাম আরও ২ জন তৃণমূল কর্মী বিশ্বজিতকে ডেকে নিয়ে যায়।

অভিযোগ, ডেকে নিয়ে যাওয়া পর তাঁরা মদের আসর বসান। তারপর থেকেই আর কোনও খোঁজ মিলছিল না বিশ্বজিত তালুকদারের। এদিন সকালে রেললাইনের ধরে বিশ্বজিতের ক্ষতবিক্ষত দেহটি পড়ে দেখতে পান গ্রামবাসীরা। পুলিসে খবর দেন। পুলিস এসে মৃতদেহটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্যে পাঠিয়েছে। বিশ্বজিৎ তালুকদারের স্ত্রী, এক ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে। তিনি তৃণমূল কংগ্রেসের একজন সক্রিয় কর্মী ছিলেন।

পুলিশ সুত্রে জানা গেছে, বিশ্বজিত তালুকদারের শরীরে একাধিক আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। তাঁর হাত ভাঙা রয়েছে। তাঁর চোখ দুটো কার্যত খুবলে নেওয়ার মতো মনে হচ্ছিল। পরিবারের অভিযোগের ভিত্তিতে, ওই খুনের ঘটনায় জড়িত সন্দেহে সদিকুল মিয়া নামে এক তৃণমূল কর্মীকে আটক করা হয়েছে। কী কারণে খুন ? তা জানতে তদন্ত শুরু করেছে মাথাভাঙ্গা থানার পুলিশ।

See More

Latest Photos