পরম্পরায় বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে সরস্বতী পুজোর পরের দিন ছাত্রীদের প্রেম নিবেদন

Zoom In Zoom Out Read Later Print

প্রায় ২৫ বছরেরও বেশি সময় ধরে চলে আসছে এই রেওয়াজ। রেওয়াজ মেনেই সরস্বতী পুজোর পরের দিন ছাত্রাবাসে দল বেঁধে হাজির হয় ছাত্রীরা৷ পরস্পর পরস্পরকে ভালবাসার সাক্ষী হিসাবে তত্ত্ব আদানপ্রদান করে৷ রংগীন কাগজে মোড়া স্ট্রবেরি, কাজু, কিসমিসের সঙ্গে থাকে চকোলেট, চিপস, কুরকুরে। বিয়ে বাড়ির বরকনের তত্ত্ব প্রদানের মতই।

নিজস্ব সংবাদদাতা, পূর্ব বর্ধমান, ১১ ফেব্রুয়ারি;

ফুল ফুটুক বা নাই ফুটুক আজ বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে বসন্ত৷ সরস্বতী পুজো মানেই ‘ভ্যালেনটাইন ডে’৷ প্রায় ২৫ বছরেরও বেশি সময় ধরে চলে আসছে এই রেওয়াজ। রেওয়াজ মেনেই সরস্বতী পুজোর পরের দিন ছাত্রাবাসে দল বেঁধে হাজির হয় ছাত্রীরা৷ পরস্পর পরস্পরকে ভালবাসার সাক্ষী হিসাবে তত্ত্ব আদানপ্রদান করে৷ রংগীন কাগজে মোড়া স্ট্রবেরি, কাজু, কিসমিসের সঙ্গে থাকে চকোলেট, চিপস, কুরকুরে। বিয়ে বাড়ির বরকনের তত্ত্ব প্রদানের মতই। আর সবকিছু ছাপিয়ে থাকে প্রেমের ইশারা। ছাত্রীরা যখন ছাত্রাবাসে প্রবেশ করে তখন সেখানে সমস্ত রকম ছবি তোলা একেবারেই নিষিদ্ধ। ভেতরে কি কি হয় তাও জানাতে মানা। দীর্ঘদিন ধরেই চলে আসছে এই রীতি৷

উল্লেখ্য, বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে গোলাপবাগ ক্যাম্পাসে রয়েছে সরোজিনী, গার্গী, প্রীতিলতা, মীরাবাঈ, নিবেদিতা, এবং বাবু জগজীবনরাম এই ৬ টি ছাত্রী আবাস৷ অন্যদিকে, রয়েছে রবীন্দ্র, অরবিন্দ, বিবেকানন্দ, চিত্তরঞ্জন, নেতাজি, আইনস্টাইন এই ৬টি ছাত্রাবাসও৷ সরস্বতী পূজোর পরের দিনকে কেন্দ্র করে স্বভাবতই ছাত্রছাত্রীরা পরস্পরের মন রাঙিয়ে আরও একটু কাছে আসার চেষ্টা করেন৷ অবশ্যই যাঁরা একটু সাহসী তাঁরা অন্যদের চোখ এড়িয়ে একটু ঘনিষ্ঠ হওয়ার সুযোগ হাতছাড়া করতে চান না৷ কেউ বা হাতে হাত রেখে আজীবন একসঙ্গে পথ চলার অঙ্গীকারও করে ফেলে।

ছাত্রীরা এদিন জানিয়েছেন, একসঙ্গে সবাই পড়াশোনা করার পর সরস্বতী পুজোর বিসর্জনের দিন একে অপরকে তত্ত্বপ্রদানের মাধ্যমে সু সম্পর্ক গড়ে তোলা এবং একতাবোধকে আরও সুদৃঢ় করার লক্ষ্য নিয়েই এই রেওয়াজ চলে আসছে। পাল্টা ছাত্ররাও একই কথা বলেছেন। ভ্যালেণ্টাইন্স ডে নয় সকলের মধ্যে একটা সুস্থ ভালো সম্পর্ক তৈরী করাই এই রীতির মূল লক্ষ্য।

See More

Latest Photos