বর্ধমানে প্রথম মিষ্টি উৎসবের উদ্বোধন

Zoom In Zoom Out Read Later Print

উল্লেখ্য, মুখ্যমন্ত্রীর স্বপ্নের মিষ্টি হাবকে চাঙ্গা করতে বুধবার থেকে মিষ্টিহাব প্রাঙ্গণেই শুরু হল প্রথম বছর মিষ্টি উৎসব।

নিজস্ব সংবাদদাতা, পূর্ব বর্ধমান, ১৬ জানুয়ারি;

মন্ত্রী যখন উদ্বোধন করলেন তখনও অনেক স্টল খোলেই নি। অথচ অনেক আগে থেকেই প্রশাসনিকভাবে বুধবার থেকে মিষ্টি উৎসবের বিষয়টি জানানো হয়। আর তাই বুধবার বর্ধমানে প্রথম মিষ্টি উৎসবের উদ্বোধন করতে এসে রাজ্যের ক্ষুদ্র ও কুটিরশিল্প দপ্তরের মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ উপস্থিত জেলা শিল্পকেন্দ্রের জেনারেল ম্যানেজারকে জানিয়ে দিলেন যাঁরা স্টল নিয়ে বন্ধ রেখেছেন খুলছেন না, তাঁদের হাত থেকে স্টল নিয়ে অন্যদের হাতে দিয়ে দিন।

স্বপনবাবু বলেন, মুখ্যমন্ত্রীর স্বপ্নের প্রকল্প বর্ধমানের এই মিষ্টি হাব। প্রায় ৫ কোটি টাকা ব্যয় করে এই মিষ্টি হাব তৈরী করা হয়েছে। তাই সকলকে এই মিষ্টি হাব চালুর চেষ্টা করতে হবে। তিনি এদিন আশা ব্যক্ত করে জানান, বর্তমান সময়ে কোনো জায়গাই ফাঁকা থাকেন না, তাই এই মিষ্টি হাবও পুরোদমে চালু হবেই। উল্লেখ্য, মুখ্যমন্ত্রীর স্বপ্নের মিষ্টি হাবকে চাঙ্গা করতে বুধবার থেকে মিষ্টিহাব প্রাঙ্গণেই শুরু হল প্রথম বছর মিষ্টি উৎসব।

এদিন এই উৎসবের সূচনা করেন রাজ্যের ক্ষুদ্র ও কুটিরশিল্প দপ্তরের মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ। হাজির ছিলেন জেলা পরিষদের সভাধিপতি শম্পা ধাড়া, জেলাশাসক অনুরাগ শ্রীবাস্তব, জেলা পুলিশ সুপার ভাস্কর মুখোপাধ্যায়, অতিরিক্ত জেলাশাসক অরিন্দম নিয়োগী, জেলা তথ্য ও সংস্কৃতি আধিকারিক কুশল চক্রবর্তী প্রমুখরা।

উল্লেখ্য, প্রায় বছর দুয়েক আগে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী বর্ধমানের এই মিষ্টি হাবের উদ্বোধন করেন। দুটি তলায় মোট ২৫টি স্টল রয়েছে। এদিন মিষ্টি উৎসবের পাশাপাশি দ্বিতীয় দলের ১০টি স্টলেরও উদ্বোধন করা হয়। মিষ্টি উৎসব উপলক্ষে বর্ধমানের সীতাভোগ, মিহিদানা, ল্যাংচার পাশাপাশি আরও কয়েকটি মিষ্টি ইতিবৃত্ত সংকলিত প্যাভিলিয়নের আয়োজন করা হয়েছে।

স্বপনবাবু জানিয়েছেন, মিষ্টি, পিঠেপুলি এগুলি সবই ক্ষুদ্র শিল্প। রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীই এগুলিকে শিল্পের মর্যাদা দিয়েছেন। মিস্টি উৎসবে থাকছে মিহিদানা সীতাভোগ, রসগোল্লা, জলভরা সন্দেশ সবই। মিষ্টির পাশাপাশি থাকছে বিভিন্ন ধরনের স্ন্যাকস, বিরিয়ানী সহ অন্যান্য খাবারের ব্যবস্থাও। থাকছে মনোরঞ্জনের জন্য বাউলগান ও বিভিন্ন ধরণের প্রতিযোগীতা।

এদিনই স্কুলের ছেলেমেয়েরা অংশ নেয় মিষ্টি হাব নিয়ে বসে আঁকো প্রতিযোগিতায়। ক্রেতাদের আকর্ষণের জন্য থাকছে বিশেষ ছাড়। ক্রাচ্ কার্ডের মাধ্যমে মিলবে ৫০ শতাংশ পর্যন্ত ছাড়। উৎসব চলবে ২২ শে জানুয়ারী পর্যন্ত। এরই পাশাপাশি এদিন বক্তব্য রাখতে গিয়ে জেলা পুলিশ সুপার ভাস্কর মুখোপাধ্যায় জানিয়েছেন, মিষ্টি উৎসব উপলক্ষে যাতে সাধারণ মানুষের কোনো সমস্যা না হয় সেজন্য বাড়তি পুলিশী নিরাপত্তা থাকবে এই উৎসব প্রাঙ্গণে।

উল্লেখ্য, মুখ্যমন্ত্রী এই মিষ্টি হাব চালু করলেও ক্রেতার অভাবে কার্যতই তা মুখ থুবড়ে পড়ে। এদিন মিষ্টি হাবের দ্বিতলের উদ্বোধন হওয়া এবং সেখানে মিষ্টির দোকানের পাশাপাশি অন্যান্য খাবারের দোকান তৈরী হওয়ায় প্রশাসনের আশা আস্তে আস্তে তা সাধারণ মানুষের মনোরঞ্জন ঘটাবে।

See More

Latest Photos